• Tuesday, October 24, 2017
logo
add image
‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্প বিপ্লবে পরিণত হয়েছে

‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্প বিপ্লবে পরিণত হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক::জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০২১ সালের মধ্যে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্ন বাস্তবে রুপ দেওয়ার লক্ষ্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দারিদ্রবিমোচনে ১০টি বিশেষ উদ্যোগ হাতে নিয়েছেন। উন্নত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে দৃঢ় প্রত্যয়ে নিয়ে কাজ করছে সরকার।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের সহযোগিতায় জেলা তথ্য অফিস, চট্টগ্রাম প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০টি উদ্যোগ বিষয়ক মতবিনিময় সভার আয়োজন করেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মাশুকুর রহমান সিকদার মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন।
বক্তরা বলেন, গ্রামের দরিদ্র মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প একটি বিপ্লবে পরিণত হয়েছে। এ বিপ্লবের মূল “সুর দিন বদলে স্বপ্ন আমার, একটি বাড়ি একটি খামার”। এর ভিশন হলো নিজস্ব পুঁজিগঠন ও বিনিয়োগ কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও জীবিকায়নের মাধ্যমে দারিদ্র নিরসন ও টেকসই উন্নয়ন। সারাদেশে ৪০ হাজার ৩১৬টি গ্রাম উন্নয়ন সমিতি গড়ে উঠেছে এবং সমিতির উপকার ভোগীর সংখ্যা ২৪ লাখ ৩৪ হাজার। এ প্রকল্প এলাকায় নিন্ম আয়ের পরিবারের সংখ্যা ১৫% থেকে কমে ৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।
স্কুলগামী শতভাগ শিশুকে বিদ্যালয় আনয়ন, মাধ্যমিক পর্যায়ে বিনা মূল্যে বই বিতরণ, মেয়েদের বিনা বেতনে অধ্যায়নের সুযোগ, শিক্ষা সহায়তা ভাতা এবং আইটি নির্ভর মাল্টিমিডিয়া শ্রেণিপাঠ দান, এছাড়া প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে গুনগত শিক্ষা নিশ্চিতকরন। স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করাই কমিউনিটি ক্লিনিক ও মানসিক স্বাস্থ্য কর্মসূচির ভিশন। গ্রামের মানুষের দোরগোড়ার স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছাতে ৬ হাজার মানুষের জন্য একটি করে কমিউনিটি ক্লিনিক গড়ে তোলা হয়েছে। এর ফলে প্রতি হাজারে শিশু মৃত্যুর হার ৪১ থেকে ৩৭ এ নামিয়ে আনা এবং প্রতি লাখে মাতৃমৃত্যুর হার ১৯৪ থেকে ১০৫ এ নামিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে।
আশ্রয়কেন্দ্রের উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে বলেন, ঘুর্ণিঝড় ও নদী ভাঙনে ছিন্নমূল অসহায় পরিবারের পূনর্বাসন এ প্রকল্পের প্রধান লক্ষ্য। সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ১৯৯৭ সাল থেকে ২০১৬ পর্যন্ত ১ লাখ ৩৯ হাজার পরিবারকে পুর্নবাসন করা হয়েছে।
মতবিনিময় সভায় উপপরিচালক জেলা তথ্য অফিস, চট্টগ্রাম মো. আবু সাঈদ, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা অন্জনা ভট্টাচার্য্যসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a reply