• Tuesday, October 24, 2017
logo
add image
গুনিজনদের প্রশিক্ষণে আরও দক্ষ করে তোললো সাংবাদিকদের

গুনিজনদের প্রশিক্ষণে আরও দক্ষ করে তোললো সাংবাদিকদের

কাজী ইব্রাহিম সেলিম:: মাস্টার্স পাস করেও সবার পক্ষে জজ ম্যাজিস্ট্রেট হওয়া সম্ভব নয়। সাংবাদিকতা পেশায়ও সবাইকে নিয়োগ দেওয়া দৈনিক আজাদী, কালের কণ্ঠ বা যুগান্তরের পক্ষে সম্ভব নয়। তবে চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকরা ছোট হোক বা বড় হোক কোনো না কোনো টিবি চ্যানেলে বা পত্রিকাতে সাংবাদিক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে এসেছেন। এটাকে কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। যেহেতু সিআরইউ অনেক পুরাতন সংগঠন নয় সেহেতু এই কমিটিতে দক্ষ সাংবাদিক আছে কিনা কারো কারো মাঝে এই প্রশ্ন জাগতেই পারে, সেজন্য বলতে হচ্ছে।

আমাদের সিআরইউর নেতৃবৃদের মাঝে অনেকেই আছেন শুধু সংবাদ পরিবেশ করেই ক্লান্ত হয়ে যায়না। তারা সময় পেলেই কবিতা, গান, ছড়া, কলাম, ফিচার কোনো কোনো জনসেবামূলক লিখা লিখে বহুমূখী প্রতিভার অধিকারী হিসেবে পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। নেতৃবৃন্দরা সবসময় বলে থাকেন, দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ থাকলে এবং সাংবাদিক নয় এমন কেউ সিআরইউর সদস্য হতে পারবেনা। শিক্ষার কোনো শেষ নেই, সেজন্য নিজেদেরকে আরও দক্ষ সাংবাদিক হিসেবে গড়ে তুলতে সিআরইউর এই সাংবাদিকতার প্রশিক্ষণ গ্রহণ। ২ দিনব্যাপী ব্যসিক ট্রিনিং অন মাল্টিমিডিয়া জার্নালিজম প্রশিক্ষণ কর্মশালা চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স ইউনিটির (সিআরইউ) সভাপতি কিরণ শর্মার সভাপতিত্বে ২৯ শে সেপ্টেম্বর সকাল ৯ টা ৩০ মিনিটে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এতে রিপোর্ট লিখন কৌশলসহ নানামূখী শিক্ষা গ্রহণ করেন সিআরইউর সাংবাদিকরা। কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি ছিলেন, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরী। প্রশিক্ষক ছিলেন, বিশ্ব প্রেসকাউন্সিল নির্বাহী পরিষদের সাবেক সদস্য মঈনুদ্দিন কাদেরী শওকত, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আবুল কালাম আজাদ, দৈনিক আজাদীর বার্তা সম্পাদক এ. কে. এম জহুরুল ইসলাম, সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন শ্যামল, চবি গণ যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাধব দীপ, বেতার-টিভি মঞ্চ উপস্থাপক দিলরুবা কানম।

প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক বক্তৃতায় বলেন, এরকম জ্ঞানার্জনের প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজন যেন সবসময় করা হয়। দুর্নীতিবাজ যেই হোক, ছাড় দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তিনি আরও বলেন, বাহির দেশের সাথে সম্পর্কের যেন অবনতি না ঘটে সেদিকে লক্ষ্য রেখে সংবাদ পরিবেশ করা দরকার। তিনি নানা শিক্ষণীয় ও দিকনির্দেশনামূলক প্রায় ১ ঘন্টা পর্যন্ত বক্তৃতা রাখেন।

দুই দিনব্যাপী গুণিজনদের প্রশিক্ষণে সিআরইউর সাংবাদিকদের মাঝে পূর্বে যেইসব বিষয়ে অজানা ছিল সেইসব বিষয়েও এখন জানা হয়েছে। জ্ঞানের প্রসার ঘটেছে, এতে সংবাদ পরিবেশনে অনেকটা সহায়ক হবে। দ্বিতীয় দিন ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং সকাল ৯.৩০ মিনিটে অনুষ্ঠিত হলে সন্ধ্যা ৬ টায় মাননীয় প্রশিক্ষকগণ, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সিআরইউর সাংবাদিকদের মাঝে সনদপত্র প্রদান করেন।কাজী ইব্রাহিম সেলিম, কবি ও সাংবাদিক, সাবেক সহ দপ্তর সম্পাদক চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স ইউনিটি।

Leave a reply