চুয়েটের প্রকৌশলীরা সাহিত্য-সংস্কৃতিকে লালন করছেঃ চুয়েট ভিসি

0

সিটি নিউজ ডেস্কঃ চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) -এর বিতার্কিকদের সংগঠন চুয়েট ডিবেটিং সোসাইটির আয়োজনে ১৩তম আন্তঃবিভাগ বিতর্ক প্রতিযোগিতা গতকাল ১৮ নভেম্বর (রবিবার), সম্পন্ন হয়েছে।

‘জাগরণের গল্পে তুমি হও দৃষ্টান্ত’ শ্লোগানে প্রতিযোগিতার বাংলা বিতর্কে চ্যাম্পিয়ন হয় কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগ এবং ইংরেজি বিতর্কে চ্যাম্পিয়ন হয় ইলেকট্রনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগ। এবারের প্রতিযোগিতায় বাংলা বিতর্কে ২৬ টি এবং ইংরেজি বিতর্কে ৮ টিসহ মোট ৩৪ টি দল অংশগ্রহণ করে।

তিনদিনব্যাপী উক্ত প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়েটের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলা একাডেমি পুরষ্কারপ্রাপ্ত শিশুসাহিত্যিক এবং স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সংবাদপত্র দৈনিক আজাদীর সহযোগী সম্পাদক কবি ও সাংবাদিক জনাব রাশেদ রউফ, ডিবেটিং সোসাইটির প্রধান উপদেষ্টা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী,

ডিবেটিং সোসাইটির চীফ মডারেটর এবং ইনস্টিটিউট অফ এনার্জি টেকনোলজির সহকারী গবেষণা অধ্যাপক ড. সৈয়দ আবু নাহিয়ান, পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন ও আইডিএফ’র ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর জনাব মোঃ নিজাম উদ্দিন। চুয়েট ডিবেটিং সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক শুভম দাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি জনাব স্বপ্নীল মিত্র। এ সময় ডিবেটিং সোসাইটির উপদেষ্টা ও গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. উজ্জল কুমার দেব, মডারেটর এবং নগর ও পরিকল্পনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এটিএম শাহজাহান এবং মানবিক বিভাগের প্রভাষক জনাবা নাহিদা সুলতানা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, আমাদের প্রকৌশলীরা শুধু পড়াশোনাতেই আবদ্ধ থাকে না। তারাও দেশের শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে লালন করেন। চুয়েটের ছেলেমেয়েরা সাহিত্য-সংস্কৃতিতেও সমান পারদর্শী। চুয়েট ডিবেটিং সোসাইটি এবং সাংস্কৃতিক সংগঠন জয়ধ্বনির সাফল্য সেই প্রমাণ বহন করে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কবি ও সাংবাদিক জনাব রাশেদ রউফ বলেন, আমাদের বর্তমান প্রজন্মকে যুক্তিনির্ভর মানবিক সমাজ গঠনে এগিয়ে আসতে হবে। যা কিছু অসম্ভব তা তরুণরাই সম্ভব করে দিতে পারে। যুদ্ধ ও প্রেমে তরুণদের বিজয় অনিবার্য। মাদক ও জঙ্গীবাদ মোকাবেলায় বিতর্ক, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কর্মকা-ই হতে পারে একমাত্র প্রতিরোধক। তাই তরুণদের বিপথগামী হতে দেওয়া যাবে না। তারা উল্টোপথে চলতে থাকলে জাতি পথ হারাবে।

এ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Leave A Reply

Your email address will not be published.